কক্সবাজার জেলায় সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূর্গোৎসব পালনের সিদ্ধান্ত

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিমা রিপোট :: বাঙালি হিন্দু সমাজের অন্যতম বিশেষ ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা ২০২০ উদযাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কক্সবাজার জেলা শাখা আয়োজিত এক প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ১১টায় শহরের লালদিঘীর পাড়স্থ ব্রক্ষ্যমন্দিরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে কক্সবাজার জেলায়ও সরকার থেকে পাওয়া বিধিমালা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও ট্রাস্টি বাবুল শর্মার উপস্থাপনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পূজা পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট রণজিত দাশ।

প্রস্তুতি সভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের সিনিয়র সহসভাপতি উদয় শংকর পাল মিঠু,বাবু রতন দাশ, স্বপন পাল নাজির,বিপুল সেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপক শর্মা দীপু, স্বরুপম পাল পাঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক বিশ্বজিত পাল বিশু সহ আট উপজেলা থেকে আগত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট রণজিত দাশ তার বক্তব্যে বলেন- কেন্দ্রীয় পূজা কমিটির নির্দেশে আগামী ২২ অক্টোবর বাঙালি সনাতন সম্প্রদায়ের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শ্রীশ্রী শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তাই পূজোর সময়ে করণীয় সর্ম্পকে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির পাঠানো ২৬ টি দিক নির্দেশনা মোতাবেক এই শারদীয় দুর্গাপূজা করা হবে। তার এ আহ্বানকে সমর্থন জানিয়ে এ বছর জেলায় প্রায় ২৯৫টি (প্রতিমা ও ঘট) মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে প্রাথমিকভাবে মত প্রকাশ করেন সাধারণ সম্পাদক ও ট্রাস্টি বাবুল শর্মা।

এর আগে সভার শুরুতে সদ্য প্রয়াত ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি বন্ধু প্রণব মুখার্জি, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার বীরউত্তম খেতাবপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল (অব.) সি আর দত্ত ও জেলা, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ,সদস্য এবং তাদের নিকটাত্বীয়দের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব আনা হয়। এ সময় প্রয়াতদের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়।